দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার সেরা ছয়টি ইনকিউবেটর

0
36
দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার সেরা ছয়টি ইনকিউবেটর

স্টার্টআপ এমন একটি জিনিস যার মাধ্যমে আপনি নিজে অর্থনৈতিক ভাবে শক্তিশালী হতে পারেন। আবার দেশের অর্থনীতিতেও ভূমিকা রাখতে পারেন।তবে কোন স্টার্টআপ শুরু করার জন্য কিংবা সঠিকভাবে পরিচালনার জন্য দরকার সঠিক দিক নির্দেশনা। সঠিক দিক নির্দেশনার মাধ্যমেই একটি আইডিয়া পরিণত হতে পারে মিলিয়ন ডলারের কোম্পানীতে। আর স্টার্টআপগুলোকে সঠিক দিক নির্দেশনা দেয় ইউকিউবেটর ও বিভিন্ন এক্সেলেরেশন প্রোগ্রাম গুলো। তাদের মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে একটি আর্লি-স্টেজ স্টার্টআপকে গাইড করে তাকে সফল করা এবং স্টার্টআপ ইকোসিস্টেম এর মধ্যে প্রবেশ করানো। সারাবিশ্বেই স্টার্টআপ কোম্পানি গুলোকে সাহায্য করা প্রচুর ইনকিউবেশন প্রোগ্রাম আছে।

আজকে আলোচনা করা হবে, দিন দিন অর্থনৈতিক জায়ান্ট হয়ে উঠা দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার সেরা ছয়টি ইনকিউবেটর নিয়েঃ

১: টিউন ল্যাবস (Tune Labs)
এটি মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুর ভিত্তিক একটি ইনকিউবেটর যারা মূলত আইডিয়া নিয়ে কাজ করে। তাদের কাজ হচ্ছে একদম প্রথম থেকে শুরু করে একটি আইডিয়াকে প্রোডাক্টে পরিণত করা এবং সঠিক সময়ে ওই প্রোডাক্টকে মার্কেটে উপস্থাপন করা। পুরো ব্যবস্থাপনাটিতে উদ্যোক্তাদের মেন্টর হিসেবে থাকেন এয়ার এশিয়ার (Air Asia) সহ-প্রতিষ্ঠাতা তান শ্রী টনি ফারনান্দেস(Tan sri Tony-Farnandes),দাতুক কামারুদিন মেরানান (Datuk kamarudin Meranun) এবং ইসিএম লিবরা (ECM Libra) গ্রুপের সহ-প্রতিষ্ঠাতা লিম কিয়ান ওন (Lim Kian Onn)।

ইনকিউবেশন প্রক্রিয়া: প্রতিষ্ঠানটি বছরে তিনটি এক্সেলেরেশন প্রোগ্রাম পরিচালনা করে।যার প্রত্যেকটির দৈর্ঘ্য ১২ সপ্তাহ করে। স্টার্টআপগুলো তাদের অনলাইন পোর্টাল এর মাধ্যমে আবেদন করতে হয়। সাধারণত এক সপ্তাহের মধ্যেই তারা সাবমিশন এর রেজাল্ট দিয়ে দেয়।

ইক্যুইটি: এই কোম্পানির কোন নির্দিষ্ট পরিমাণ ইক্যুইটি নেই। তারা স্টার্টআপ এর ধরণ অনুযায়ী বিভিন্ন পরিমাণে কোম্পানী স্টেক গ্রহণ করে।

ফোকাস: এই কোম্পানী মুলত মোবাইল, ট্রাভেল,ই- কমার্স, ফিনটেক নিয়ে কাজ করে থাকে। তবে শুধু যে এগুলোই তা কিন্তু নয়, তারা আরো বিবিধ ধরণের প্রোডাক্ট নিয়েও কাজ করতে আগ্রহী।

২.প্লাগ এন্ড প্লে (Plug and Play)
সিলিকন-ভ্যালী ভিত্তিক এই ইনকিউবেটর এর দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার স্টার্ট আপ গুলোর কাছে ভালোই গ্রহণযোগ্যতা আছে। এটি দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার অন্যতম প্রধান স্টার্ট আপ ইনকিউবেটর।

ইনকিউবেশন প্রক্রিয়া: স্টার্টআপগুলো সারা বছরই এই গ্লোবাল ইনকিউবেটর কোম্পানীতে ইনকিউবেশনের জন্য আবেদন করতে পারে। আর কোম্পানিটি সিলেক্টেড স্টার্টআপ প্রতিষ্ঠান গুলোকে নিয়ে ১২ সপ্তাহের একটি এক্সেলেরেশন প্রোগ্রাম পরিচালনা করে। স্টার্টআপগুলো কোম্পানী ওয়েব সাইট এর মাধ্যমে আবেদন করতে পারে।

ইক্যুইটি: ইক্যুইটি ক্ষেত্রে তারা একটু ভিন্ন পন্থা অবলম্বন করে।তারা কখনোই স্টার্টআপ গুলো থেকে ইকুইটি দাবী করে না। বরং তারা স্টার্ট আপগুলোকে ব্যবসার বিভিন্ন ধাপে ফান্ডিং অফার করে থাকে।

ফোকাস: নির্দিষ্ট কোন শ্রেণীর স্টার্টআপের দিকে ফোকাস নেই এই কোম্পানির। আসলে এক্সেলারেশন বা ইনকিউবেশন দরকার হয় এমন সকল প্রতিষ্ঠানকেই ইনকিউবেশন করায় এই প্রতিষ্ঠানটি। উদাহরণস্বরূপ, ফিনটেক,ইন্সুরটেক, আই ও টি, ইলেক্ট্রনিক্স সব ধরণের স্টার্ট আপকেই তারা সহায়তা করে।

৩.ইম্প্যাক্টেক (Impactech)
সিঙ্গাপুরে অবস্থিত এই ইনকিউবেটর ওইসব আরলি-স্টেজড স্টার্টআপ গুলো নিয়ে কাজ করে যারা ইনোভেটিভ প্রযুক্তি ব্যবহার করে বিভিন্ন সামাজিক সমস্যার সমাধান করে থাকে বা বিভিন্ন সেবামূলক ব্যবস্থাকে আরো সহজলভ্য ও উন্নত করতে পারে।

ইনকিউবেশন প্রক্রিয়া: এটি স্টার্টআপ গুলোকে নিয়ে তিনমাসের একটি এক্সেলারেশনে যায়।যেখানে তারা উদ্যোক্তাদের সঠিক নির্দেশনা, অফিস স্পেস সহ একটি ব্যবসা দাঁড় করানোর জন্য যা যা লাগে তা দিয়ে সাহায্য করে।

ইক্যুইটি: তারা সাধারণত দুই ধরনের এক্সেলারেশন করে থাকে। একটি প্রাইভেট অন্যটি কর্পোরেট। সাধারণত কর্পোরেট এক্সেলেটর এর ক্ষেত্রে কর্পোরেটরা বিভিন্ন ইনভেস্টমেন্ট বা ইকুইটির ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়।

ফোকাস: আগেই বলা হয়েছে এই ইনকিউবেটরটি সামাজিক বিষয় ভিত্তিক স্টার্টআপগুলো নিয়ে কাজ করে। যার মধ্যে রয়েছে খাদ্য ও পুষ্টি ভিত্তিক স্টার্টআপ, এগ্রিটেক বা কৃষি নির্ভর স্টার্টআপ, এডুটেক, স্বাস্থ্যসেবা ইত্যাদি।

৪.ট্রু ইনকিউব (True Incube)
প্রতিষ্ঠানটি থাইল্যান্ডের একটি টেক এক্সেলেটর প্রোগ্রাম যারা সকল ধরনের এবং সকল স্টেজের স্টার্টআপকে নিজেদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠিত করতে সহায়তা করে।

ইনকিউবেশন প্রসেস: এই প্রতিষ্ঠানটি ১০ সপ্তাহের একটি এক্সেলারেশন প্রোগ্রাম পরিচালনা করে। এসময় তারা স্টার্ট আপ গুলোকে ১৮০০০ মার্কিন ডলার প্রদান করে আর্লি স্টেজ ইনভেস্টমেন্ট হিসেবে এবং এক্সেলারেশন প্রোগ্রাম শেষে বিজয়ীদের সিলিকন ভ্যালিতে কাজ করার সুযোগ করে দেয়। এখন পর্যন্ত তারা প্রায় ৫০০ স্টার্টআপ নিয়ে কাজ করেছে।

ইক্যুইটি: এক্সেলেরেশন প্রোগ্রাম চলাকালীন সময়েই তারা স্টার্টআপগুলো থেকে একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ ইক্যুইটি গ্রহণ করে।

ফোকাস: তারা মূলত আটটি ইন্ডাস্ট্রির উপরে ফোকাস দিয়ে থাকে: লজিস্টিকস, মেডিক্যাল, ফিনটেক, এনার্জি টেক, এ আই, এগ্রিটেক, আইওটি বা রোবটিক্স, এডভারটাইজিং বা মিডিয়া টেক।

৫. আন্ট্রাপ্রেইনার ফার্স্ট (Entrepreneur First):
সম্পূর্ণ ব্যতিক্রমধর্মী এই ইনকিউবেটর এর সবচেয়ে ব্যতিক্রমী বৈশিষ্ট্য হচ্ছে, এখানে একজন মাত্র লোক ও চাইলে নিজের আইডিয়া নিয়ে এক্সেলারেশন প্রোগ্রামে অংশগ্রহণ করতে পারেন।অর্থাৎ এ প্রোগ্রামে অংশগ্রহণের জন্য কোন টিম লাগে না। আর একজন প্রবেশ করে প্রোগ্রাম শেষে কোম্পানী দাড় করিয়ে বের হওয়া যায়।

ইনকিউবেশন প্রক্রিয়া: প্রতিষ্ঠানটি এশিয়া ও ইউরোপে ৬ মাস ব্যাপী ইনকিউবেশন পরিচালনা করে থাকে। সাধারণত এক সাথে ৫০ থেকে ১০০ জন লোক নিয়ে প্রোগ্রাম পরিচালনা করে। সারা বছরই এখানে আবেদন করা যায়। কিন্তু এই প্রোগ্রামের একটি অসুবিধা হচ্ছে এটি প্রচুর প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ আর এর ফান্ডিং মাত্র ৪০% থেকে ৫০% স্টার্টআপই পেয়ে থাকে।

ইক্যুইটি: সফল স্টার্টআপগুলো ১০% ইকুইটি স্টেক প্রদান করতে হয়। আবার তারা কোম্পানীগুলোকে সিড স্টেজে ফান্ডিং ও দিয়ে থাকে।

ফোকাস: তাদের নির্দিষ্ট কোন ফোকাস নেই বরং ব্যবসায়িক ট্যালেন্ট এবং ইনোভেটিভ হলেই তাদের এক্সেলারেশন প্রোগ্রামে অংশ গ্রহণ করা যায়।

৬. আইডিয়াস্পেস (IdeaSpace)
আইডিয়া স্পেস একটি নন- প্রফিটেবল ফিলিপাইনি স্টার্টআপ ইনকিউবেটর, যারা এই অঞ্চলের উঠতি স্টার্ট আপ গুলোকে সফল হতে সহায়তা করে। তারা স্টার্ট আপগুলোকে মার্কেট ডেভেলপের জন্য ইকুইটি ফ্রি ফান্ডিং দিয়ে থাকে।সাধারণত তারা ১৯,৭১০ মার্কিন ডলারের ফান্ডিং প্রদান করে।

ইনকিউবেশন প্রসেস: তারা ২০ সপ্তাহ ব্যাপী একটি ইনকিউবেশন পরিচালনা করে থাকে, এ প্রোগ্রামে তারা মূলত প্রোডাক্ট ডেভেলপমেন্ট, মার্কেট ভ্যালিডেশন এবং টিম ম্যানেজমেন্ট নিয়ে কাজ করে থাকেন। স্টার্টআপ গুলোকে নিয়ে তারা একটি প্রতিযোগিতার আয়োজন করে এবং স্টার্ট আপ গুলো প্রতিযোগিতা জিতে বিভিন্ন সুবিধা হাসিল করতে পারে। যেমন: ১০,৪০০ মার্কিন ডলার ক্যাশ, হাউজিং, ট্রান্সপোর্টেশন, মেন্টরশীপ, ট্রেইনিং, অফিস স্পেস,সফটওয়্যার সাপোর্ট ইত্যাদি।

ইকুইটি: ২০১৬ সাল থেকে কোম্পানিটি কোন ইকুইটি গ্রহণ না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

ফোকাস: তারা যেকোন ধরনের ইনোভেটিভ সলুশ্যনকে প্রাধান্য দিয়ে এগুলো নিয়ে কাজ করে।

এই ছিল ৬ টি ইনকিউবেটর এর বর্ণনা। দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার উঠতি অর্থনীতিকে শক্তিশালী করতে তাদের ভূমিকা অনন্য।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here