পৃথিবী আগের চেয়ে আরও দ্রুত ঘুরছে

0
10
পৃথিবী আরও দ্রুত ঘুরছে

আমরা জানি যে পৃথিবী ২৪ ঘন্টায় একবার তার অক্ষে আবর্তিত হয়। কিছু কিছু কারণ আছে যার উপর নির্ভর করে পৃথিবী ধীরে ঘুরবে নাকি দ্রুত। এগুলোর মধ্যে বায়ুমণ্ডলীয় চাপ, মহাসাগর স্রোত, বায়ু, গ্রহের গলিত কেন্দ্রের গতিবিধি ইত্যাদি অন্তর্ভুক্ত আছে। দেখে মনে হচ্ছে যে আমাদের প্রিয় গ্রহ পৃথিবী খানিকটা তাড়ার উপর ছিল এবং ২০২০ সালটি দ্রুতই শেষ করতে চেয়েছে। এর কারণ হচ্ছে গ্রহটি গত বছরে ২৮ বার ৮৬৪০০ সেকেন্ডের চেয়ে দ্রুত ঘুরে একটি নতুন রেকর্ড তৈরি করেছে। ধারণা করা হচ্ছে যে ২০২১ সাল আরও দ্রুত শেষ হতে পারে। এটি নিশ্চিত করা গেছে যে ২০২০ সাল পূর্ববর্তী বছরগুলোর চেয়ে ছোট ছিল যদিও তা তেমন একটা অনুভব করা যায় নি।

শতাব্দীর শেষার্ধের চেয়ে পৃথিবী এখন দ্রুত গতিতে ঘুরছে। এই গ্রহের গড় দিনের দৈর্ঘ্য ০.০৫ মিলিসেকেন্ড হ্রাস পেতে পারে এবং বছরের শেষে পারমাণবিক ঘড়ির চেয়ে ১৯ মিলিসেকেন্ড বা ০.০১৯ সেকেন্ড দ্রুত গতিবেগের দিকে নিয়ে যেতে পারে। ১৯৬০ এর দশকের পরে এক দিনের দৈর্ঘ্যের অতি-সুনির্দিষ্ট রেকর্ডগুলো ট্র্যাক রাখতে পারমাণবিক ঘড়িগুলো ব্যবহৃত হয়। মজার বিষয় হচ্ছে ২৮ দিন ছোট হওয়ার এই রেকর্ডটি ২০০৫ সালের ৫ই জুলাইয়ে নথিভুক্ত ইতিহাসে সবচেয়ে ছোট দিনের আগের রেকর্ডকে ভেঙ্গে দিয়েছে। সেই দিনটি ৮৬৪০০ সেকেন্ডের চেয়ে ১.০৫ মিলিসেকেন্ড কম ছিল। এখন সবচেয়ে ছোট দিনটি আগের রেকর্ডের তুলনায় ০.৪৫ মিলিসেকেন্ড কমে গিয়েছে।

পৃথিবী আরও দ্রুত ঘুরছে

এই ছোট দিনগুলো নিয়ে খুব বেশি চিন্তা করার প্রয়োজন নেই। তবে গলিত কেন্দ্র, মহাসাগর এবং বায়ুমণ্ডলের অনেকগুলো কার্যকলাপ এই বিচ্যুতির ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এদিকে বিজ্ঞানীরা একটি সংক্ষিপ্ত বছরের ভবিষ্যৎবাণী করছেন যা পারমাণবিক ঘড়ির চেয়ে ১ সেকেন্ড ছোট হতে পারে।

২০২১ সাল যদি পূর্বাভাস অনুযায়ী চলতে থাকে, তবে এটি কয়েক দশকের মধ্যে সবচেয়ে ছোট বছর হবে। বিজ্ঞানীরা দাবি করেছেন যে এটি একটি স্বাভাবিক ঘটনা কারণ পারমাণবিক ঘড়ি চালু হওয়ার পর থেকেই আবর্তনকাল সবসময়ই কিছুটা কম ছিল। এগুলো সামঞ্জস্যে ফিরিয়ে আনতে তারা ইতিবাচক বা নেতিবাচক “লিপ সেকেন্ড” যুক্ত করতে পারে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here