বিআরটিএ এর কার্যক্রম সীমিত পরিসরে চালুর দাবি বারভিডার

0
7
বিআরটিএ এর কার্যক্রম সীমিত পরিসরে চালুর দাবি বারভিডার

মহামারী করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে বাংলাদেশ সরকার এর পক্ষ থেকে বিভিন্ন দিকনির্দেশনা দেয়া হয়েছে। নির্দেশিত এসব বিধিনিষেধের রেখে প্রয়োজনের তাগিদে স্বাস্থ্যবিধি মেনে বাংলাদেশ রিকন্ডিশন্ড ভেহিকলস ইম্পোর্টার্স অ্যান্ড ডিলার্স অ্যাসোসিয়েশন দাবি জানিয়েছে সীমিত পরিসরে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) কার্যক্রম চালুর জন্য।

তাই গতকাল সংবাদ মাধ্যমকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে সীমিত পরিসরে বিআরটিএর কার্যক্রম চালুর এই দাবি করা হয়। সংগঠনটির সেক্রেটারি জেনারেল মোহাম্মদ শহীদুল ইসলাম স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, বর্তমান লকডাউন পরিস্থিতিতে বন্দর, কাস্টম হাউজ ব্যাংক খোলা থাকায় বারভিডার সদস্যারা তাদের আমদানি করা গাড়িগুলো বিক্রির জন্য ছাড় করছেন। তবে বিআরটিএর সকল কার্যালয় বন্ধ থাকায় গাড়ির ক্রেতারা কোনভাবেই রেজিস্ট্রেশন করতে পারছেন না। যার ফলে নতুন কেনা গাড়িগুলোর নম্বর না থাকার কারনে সে গাড়ী গুলো ব্যবহার করতে পারছেন না।

এজন্য আমদানিকারক ক্রেতারা ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার পাশাপাশি সরকারের রাজস্ব কর আদায় কার্যক্রমও বন্ধ হয়ে আছে। এমতাবস্থায় অন্যান্য সকল জরুরি সেবা সংস্থার মতো বিআরটিএ কার্যালয় সীমিত পর্যায়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে খোলা রাখার জোর দাবি জানিয়েছে বারভিডা। বিভিন্ন প্রয়োজনে বিশেষ কোন সহজ ব্যবস্থায় রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রম চালু রাখার জন্য দাবি জানিয়েছে সংগঠনটির নেতারা।

এছাড়া বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়েছে, বারভিডা স্বল্প সময়ের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরসহ বিআরটিএ এবং সড়ক পরিবহন সেতু মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করে লকডাউন অবস্থায় বিশেষ সেবা হিসেবে গাড়ি রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রম চালুর জোর অনুরোধ জানিয়েছে। বারভিডা মনে করছে, সরকারের রাজস্বপ্রাপ্তি, বারভিডার ব্যবসায়িক কার্যক্রম স্বাভাবিক রাখার এবং জনস্বার্থে রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রম জরুরি ভিত্তিতে চালু করার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করতে হবে। তাছাড়া করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে গত ১৪ই এপ্রিল থেকেকঠোর বিধিনিষেধআরোপ করেছে বাংলাদেশ সরকার। তখন থেকে বিভিন্ন সরকারি বেসরকারি অফিসের মতো করে বিআরটিএর সকল কার্যক্রমও যথারীতি বন্ধ রয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here