নির্ধারিত রেটে ব্রডব্যান্ড সংযোগ না পেলে অভিযোগের পদ্ধতি

0
14
ব্রডব্যান্ড সংযোগ

সারাদেশের ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট ব্যবহারকারীরা এক রেটে একই পরিমাণ ইন্টারনেট সেবা কিনতে পারবেন বলে ঘোষণা দিয়েছে সরকার। এছাড়াও গ্রাহকদের জন্য তিনটি স্তর ঠিক করে দিয়েছে সরকার, তাতে ৫ এমবিপিএস ৫০০ টাকায়, ১০ এমবিপিএস ৮০০ টাকায় ও ২০ এমবিপিএস এক হাজার ২০০ টাকায় পাওয়া যাবে। রবিবার দিন (৬ জুন) ঘোষণার পর থেকে এই নতুন নিয়ম কার্যকর হয়েছে।

দেখা যায়, ঢাকার কোনো গ্রাহক মাসে ১ হাজার টাকা বিল দেন ১০ এমবিপিএস (মেগাবাইটস পার সেকেন্ড) ব্যবহারের জন্য, সেখানে জুন মাসের বিল (জুলাই মাসে যেটা পাওয়া যাবে) দেওয়ার সময় তিনি মাত্র ৮০০ টাকা পরিশোধ করবেন। আর যেসকল গ্রাহকেরা মাসে ৮০০ টাকারও কম বিল দিতেন তাদেরটাও সমন্বয় করা হবে বলে জানা গিয়েছে।

সরকার ঘোষিত দামে যদি কোনও আইএসপি (ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান) মাসিক বিল না নেয়, এবং ঘোষিত গতিতে এমবিপিএস না দেয় তাহলে তিনি (গ্রাহক) টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থায় অভিযোগ জানাতে পারবেন। এটি শুধু ঢাকা শহরের জন্য প্রযোজ্য নয়। অন্যান্য জেলা কিংবা প্রত্যন্ত এলাকার একজন গ্রাহকও যদি আইএসপি’র দেওয়া প্রতিশ্রুত গতি না পান তাহলে তিনি বা সেসকল গ্রাহকেরাও অভিযোগ জানাতে পারবেন।

টেলিকম ও সেবা নিয়ে অভিযোগ জানানোর জন্য ফোন করতে চাইলে বিটিআরসি হটলাইন ১০০ নম্বরে ফোন করা যাবে। এছাড়াও অনলাইনে অভিযোগ জানতে চাইলে বিটিআরসির এই লিংকে- http://btrc.isslcrm.com/ComplainManagement ঢুকেও অভিযোগ জানানো যাবে।

অন্যদিকে দেশের ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর সংগঠন আইএসপিএবির সভাপতি জনাব আমিনুল হাকিম জানিয়েছেন, “গ্রাহক যদি ঘোষিত গতি এবং নির্ধারিত দামে ইন্টারনেট সেবা না পায় তবে আইএসপিএবিকেও অভিযোগ জানাতে পারবেন।” এছাড়াও অনলাইনে info@ispab.org উক্ত মেইলে আইডিতে অভিযোগ জানালেও সংগঠনটি গ্রাহকের সমস্যা সমাধানের উদ্যোগ নেবে বলেও আশ্বাস দিয়েছেন তিনি।

বাংলাদেশে ব্রডব্যান্ডের সংজ্ঞায় বলা যায় সর্বনিম্ন গতি ১০ এমবিপিএস। ইন্টারনেট সংযোগের গতি এর চেয়ে নিচে হলে তাকে ব্রডব্যান্ড বলা যাবে না, তখন সেটা হবে ন্যারোব্যান্ড।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here