রেলমন্ত্রীর বিয়ে

0
22
রেলমন্ত্রীর বিয়ে

বিয়ে করেছেন পঞ্চগড়ের সাংসদ রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন। ৬৫ বছর বয়সে দ্বিতীয়বার বিয়ের আসনে বসলেন রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন। দিনাজপুরের বিরামপুর উপজেলার মেয়ে শাম্মী আকতার মনিকে (৪২) শনিবার (৫ই জুন) ইসলামী শরিয়াহ ও সরকারি আইন অনুসরণে বিয়ে করেন রেলমন্ত্রী।

শুক্রবার (১১ই জুন) সকালে শাম্মী আকতার মনির বড় ভাই মো. জাহিদুল ইসলাম মিলন হোসেন গণমাধ্যমের কাছে বিয়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

কনে শাম্মী আকতার মনির বাসা বিরামপুর উপজেলার নতুন বাজার এলাকায়। উক্ত এলাকার মৃত আব্দুর রহিমের মেয়ে তিনি। তারা এক বোন ও দুই ভাই। বর্তমানে বিরামপুরের বাসায় তার দুই ভাই বসবাস করেন। তার বড় ভাই মিলন হোসেন একজন ইলেকট্রিক ব্যবসায়ী। তার আরেক ভাই সেখানকার স্থানীয় ব্যবসায়ী। তাদের আগের বাড়ি ছিল পাবনায় জেলায়। কয়েক বছর আগে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডে (পিডিবি) লাইনম্যান পদে চাকরির সুবাদে আব্দুর রহিম বিরামপুরে আসেন। এরপর তিনি বিরামপুরেই থেকে যান। পরবর্তীতে তিনি বিরামপুরের নতুন বাজার এলাকায় জায়গা কিনে বাড়ি করেন এবং স্থায়ী হন।

শাম্মী আকতার পেশায় একজন এ্যাডভোকেট। আইন পেশার পাশাপাশি ঢাকায় ক্যামব্রিয়ান স্কুল অ্যান্ড কলেজে তিনি শিক্ষকতাও করেছেন।

শুক্রবার (১১ই জুন) রেলমন্ত্রী গণমাধ্যমকে বলেন, “গত ৫ তারিখে আমরা আকদ করেছি। তিনি (স্ত্রী) ল পাস করেছেন। এছাড়াও ক্যামব্রিয়ান স্কুল অ্যান্ড কলেজের অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ অফিসার হিসেবে তিনি কর্মরত আছেন।”

এদিকে কনের ভাই জাহিদুল ইসলাম মিলন বলেন, “শাম্মী ঢাকায় উত্তরায় থাকে। আইন বিষয়ে পড়াশোনা শেষ করে বর্তমানে সে হাইকোর্টে এক সিনিয়রের সঙ্গে প্র্যাকটিস করছে। গত ২০ দিন আগে আইনি বিষয়ে পরামর্শ নিতে রেলমন্ত্রীর কাছে যায় আমার বোন। এরপরেই আমার বোনকে উনার পছন্দ হয়।”

তিনি আরও বলেন, “প্রধানমন্ত্রীর অনুমতিক্রমে শনিবার (৫ই জুন) উত্তরায় আমার বোনের বাসায় পারিবারিকভাবেই তাদের বিয়ের কাজ সম্পন্ন হয়। বিয়ের সময় বরপক্ষের থেকে উপস্থিত ছিলেন বিরামপুরের বিচারপতি ইজারুল হক ও তার স্ত্রী। আর ।কনে পক্ষের থেকে উপস্থিত ছিলাম আমি ও আমার ভাই।”

তিনি বলেন, “ঘরোয়াভাবে ছোট পরিসরে যতটুকু করা দরকার ঠিক সেভাবেই বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হয়েছে।”

নূরুল ইসলাম ১৯৫৬ সালের ৫ই জানুয়ারি জন্মগ্রহন করেন। তার জন্মস্থান হলো পঞ্চগড় জেলায়। পঞ্চগড়-২ (বোদা-দেবীগঞ্জ) আসন থেকে নবম, দশম এবং একাদশ জাতীয় সংসদের সদস্য নির্বাচিত হন তিনি। ২০১৮ সালে নির্বাচিত হওয়ার পর রেলমন্ত্রী হন তিনি।

এর আগে ২০১৮ সালের ডিসেম্বর মাসে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পূর্বে নূরুল ইসলাম সুজনের প্রথম স্ত্রী নিলুফার জাহান ইন্তেকাল করেন। তাদের দুজনের ঘরে এক ছেলে ও দুই মেয়ে রয়েছে। তার তিন সন্তানেরই বিয়ে হয়ে গিয়েছে।

কনে শাম্মী আকতার মনির বড় ভাই মো: জাহিদুল ইসলাম মিলন হোসেনের মারফত জানা যায়, তার বোন শাম্মী আকতারের এর আগে বিয়ে হয়েছিল কুষ্টিয়া জেলায়। ২০১১ সালে পারিবারিক সমস্যার কারণে তাদের ডিভোর্স হয়ে যায়। ওই ঘরে তাদের একটি কন্যা সন্তান রয়েছে। ডিভোর্সের পর থেকেই মূলত নিজের মেয়েকে নিয়ে ঢাকায় থাকেন শাম্মী আকতার মনি।

মিলন হোসেন বলেন, “তারা দুজনে ঈদ কিংবা বিভিন্ন অনুষ্ঠানে বিরামপুরের বাড়িতে বেড়াতে আসতো। আবার মাঝে মধ্যে আমরাও ঢাকায় যেতাম, তাদের কাছে বেড়াতে।”

মিলন হোসেন আরও জানান, “আমার বোন বর্তমানে উত্তরার বাসায় আছে। ডিসেম্বরে তার স্বামী রেলমন্ত্রী সুজনের বাড়িতে যাবেন।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here